রেজিস্ট্রারদের আপত্তি- প্রস্তাবিত বাল‌্যবিয়ে আইন

রেজিস্ট্রারদের আপত্তি- প্রস্তাবিত বাল‌্যবিয়ে আইন

ডিসেম্বর ১০, ২০১৬ 0 By আরসিএন২৪বিডি.কম

প্রস্তাবিত বাল‌্য বিয়ে নিরোধ আইনে বিয়ে নিবন্ধনকারীর শাস্তির বিধানের বিরোধিতা করেছে বাংলাদেশ মুসলিম নিকাহ রেজিস্ট্রার সমিতি।

শনিবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে ‘বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন ২০১৬ ও বাস্তবতা’ শীর্ষক সেমিনারে প্রস্তাবিত আইনে সংশোধন আনার দাবি জানিয়েছেন তারা।

বাংলাদেশ মুসলিম নিকাহ রেজিস্ট্রার সমিতির মহাসচিব সাগর আহমেদ শাহীন বলেন, “মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় কর্তৃক প্রস্তাবিত বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন ২০১৬ এ বিবাহ নিবন্ধনকারীর লাইসেন্স বাতিল ও জরিমানা এবং শাস্তিসহ নিকাহ রেজিস্ট্রারদের বাল্যবিবাহের আয়োজনে সহায়তা বা পরিচালনাকারী হিসেবে চিহ্নিত করে এ আইনের আওতায় আনার প্রস্তাব করা হইয়াছে। এটি অমানবিক ও বাস্তবতা বিবর্জিত বলে আমরা মনে করি।”

বক্তব‌্যের পক্ষে যুক্তি দিয়ে তিনি বলেন, পর্দা প্রথার কারণে অনেক সময়ই কনেকে সরাসরি দেখার সুযোগ পান না তারা। এক্ষেত্রে মেয়ের বয়স যাচাইয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের দেওয়া জন্মসনদের ওপরই তাদের নির্ভর করতে হয়।
বাংলাদেশ ইসলামী ঐক্যজোট ও ইসলামিক ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মিছবাহুর রহমান চৌধুরী প্রস্তাবিত আইনকে ‘অস্পষ্ট ও যুগোপযোগী নয়’ বলে মন্তব্য করেন।
তিনি বলেন, “যেহেতু জন্ম সনদ অথবা ছেলে মেয়ের বয়স প্রমাণের সাথে কাজীদের কোনো সম্পৃক্ততা নেই সেহেতু আইনে কাজী তথা রেজিস্ট্রারদের সাজার বিষয়টিও যথাযথ নয়। অপরাধ করবে একজন আর সাজা পাবে অন্যজন এটা কোনো আইন হতে পারে না। সরকারের উচিত নিকাহ রেজিস্ট্রারদের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে প্রয়োজনে প্রস্তাবিত আইনে সংশোধন আনা।”

অন‌্যদের মধ‌্যে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ‌্যাপক আহমদ আবুল কালাম, সাবেক জেলা ও দায়রা জজ মো. ইসমাইল মিয়া, বাংলাদেশ মুসলিম নিকাহ রেজিস্ট্রার সমিতির সভাপতি কাজী মো. মামুনুর রশিদ এবং দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা বিয়ে রেজিস্ট্রাররা সেমিনারে উপস্থিত ছিলেন।