লালমনিরহাটের চা বিক্রেতা শিশু ধর্ষণের আসামি আটক

লালমনিরহাটের চা বিক্রেতা শিশু ধর্ষণের আসামি আটক

জুন ১, ২০১৯ 0 By আরসিএন২৪বিডি.কম

লালমনিরহাটে চা বিক্রেতা সুজন শিশু ধর্ষণ মামলার আসামিকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গুলিবিদ্ধ ধর্ষক সুজন মিয়া লালমনিরহাট পৌরসভার তালুক খুটামারা পিংকি এলাকার সাইদুল ইসলামের ছেলে।

শুক্রবার (৩১ মে) দিনগত মধ্যরাতে সদর উপজেলার দুরাকুটি ব্রীজ এলাকায় এ ‘বন্দুকযুদ্ধ’ হয়।

লালমনিরহাট সদর থানার উপ পরিদর্শক (এসআই) সেলিম রেজা চৌধুরী জানান, শুক্রবার (৩১ মে) বিকেলে হাতীবান্ধা উপজেলার পুর্ব বিছনদই গ্রামের এক গৃহবধু তিন সন্তানকে নিয়ে লালমনিরহাট থেকে বাড়ি ফিরার জন্য জজ কোর্ট এলাকায় বাসের অপেক্ষায় ছিলেন।

এ সময় জজ কোর্ট এলাকার চা দোকানদার সুজনের সঙ্গে তাদের পরিচয় হয়। এক পর্যায়ে বড় দুই সন্তানকে ওই চায়ের দোকানে রেখে ছোট সন্তানকে নিয়ে টয়লেটে যান।

এ সময় ওই গৃহবধুর বড় মেয়েকে (৮) সামন থেকে ঘুরে নিয়ে আসার কথা বলে জজ কোর্টের পিছনে ভুট্টা ক্ষেতে নিয়ে যায় লম্পট সুজন।

পরে সুজন ওই শিশুকে ধর্ষণ করে। শিশুটির চিৎকারে লোকজন ছুটে এলে লম্পট সুজন পালিয়ে যায়।

স্থানীয়রা ওই শিশুকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে লালমনিরহাট সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

এ ঘটনায় ধর্ষক সুজনের বিরুদ্ধে সদর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের হয়।

এ মামলায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রাতেই অভিযান চালিয়ে পুলিশ দুরাকুটি ব্রীজ এলাকায় ধর্ষক সুজনকে গ্রেফতার করলে তার সহযোগিরা পুলিশের উপর হামলা চালায়।

এ সময় আত্মরক্ষার্থে পুলিশ তিন রাউন্ড সর্টগানের গুলি ছুড়লে সুজনের বাম পায়ে গুলিবিদ্ধ হয়। পরে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

এ সময় ধর্ষক সুজনের সহযোগিদের হামলায় সদর থানার উপ পরিদর্শক (এসআই) সেলিম রেজা চৌধুরী, উপ পরিদর্শক (এসআই) মৃগেন্দ্র নাথ ও কনস্টবল মামুন আহত হয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন।

লালমনিরহাট সদর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহফুজ আলম এই ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ধর্ষিত শিশুকে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। ঘাতক আসামি সুজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতার সুজন পুলিশের কাছে ধর্ষনের দায় স্বীকার করেছে বলেও জানান তিনি।

 

আরসিএন ২৪বিডি/আপডেট সময়, ১৮৩০ ঘন্টা ১ জুন ২০১৯