রংপুরের দুই বাসের সংঘর্ষে প্রতিবেদন-বেপরোয়া গতিতে দুর্ঘটনা ঘটেছে

রংপুরের দুই বাসের সংঘর্ষে প্রতিবেদন-বেপরোয়া গতিতে দুর্ঘটনা ঘটেছে

সেপ্টেম্বর ১০, ২০১৮ 0 By admin

রংপুর শহরে দুই বাসের সংঘর্ষে আটজন নিহত হওয়ার ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে দুর্ঘটনার জন্য বেপরোয়া গতিকে দায়ী করা হয়েছে।

এ তদন্ত কমিটির প্রধান অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট রশিদুল মান্নাফ কবির সোমবার সকালে জেলা প্রশাসকের কাছে প্রতিবেদন জমা দেন।

জেলা ম্যাজিস্ট্রেট রশিদুল বলেন, “বেপরোয়া গতিতে চালানোর কারণে দুর্ঘটনা ঘটেছে। তাছাড়া গাড়ির ফিটনেস না থাকায় দুমড়ে-মুচড়ে যাওয়ায় হতাহতের ঘটনা বেশি ঘটে।”

গত ২ সেপ্টেম্বর রংপুর শহরে বিআরটিসির বাসের সঙ্গে রুবি পরিবহনের একটি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে নারী ও শিশুসহ আটজন নিহত হন। তবে নিহত সংখ্যা ১২ জন ছিল , রংপুর মেডিকেল নেওয়ার আগে ৪ জনের মৃত্যু হয়।

উক্ত ঘটনার দিনে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেন জেলা প্রশাসন। কমিটিকে সাত কর্মদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়। রোববার ছিল এ প্রতিবেদন দেওয়ার শেষ দিন।

কমিটি প্রধান রশিদুল বলেন, “রুবি পরিবহনের চালক বেপরোয়া গতিতে বাসটি চালান। একটি ইজিবাইককে ওভারটেক করতে গিয়ে বিপরীত দিক থেকে বিআরটিসির বাসের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়।

|RCN24BD.COM| জাতীয় রংপুর বিভাগ

“এছাড়া ফিটনেসবিহীন বিআরটিসির বাসটি সড়কে চলাচলের উপযোগী ছিল না। বাসটির বডি ছিল খুবেই দুর্বল। আর এর ফলে সংঘর্ষে বাসটি দুমড়ে-মুচড়ে যায়। এ কারণে হতাহতের ঘটনা বেশি ঘটে।”

প্রতিবেদনে সড়ক-মহাসড়কে ফিটনেসবিহীন ভারী যান চলাচল বন্ধ করার পাশাপাশি অটোরিকশা, ভটভটি, নসিমন, করিমন ও ট্যাম্পো চলাচল নিষিদ্ধ করার সুপারিশ করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

এ দুর্ঘটনার পর রংপুর কোতোয়ালি থানার এসআই মনোয়ার হোসেন দুই বাসের চালক, সহকারী, রুবি পরিবহনের মালিক ফারুক মণ্ডল ও বিআরটিসির বগুড়া ডিপোর তত্ত্বাবধায়ককে আসামি করে মামলা দায় করেন, মামলাটির প্রধান কারণ দ্রুতবেগে গাড়ি চালিয়ে মৃত্যু ঘটানোর জন্য ।

অন্যদিকে দুর্ঘটনার আট দিন পেরিয়ে গেলেও পুলিশ কোনো আসামিকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কোতোয়ালি থানার এসআই সাইফুর রহমান বলেন, আসামিরা গা ঢাকা দেওয়ায় গ্রেপ্তার করতে বিলম্ব হচ্ছে। তবে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।