পদ্মাসেতুর বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়ন বন্ধের পেছনে ড. মুহম্মদ ইউনুস

পদ্মাসেতুর বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়ন বন্ধের পেছনে ড. মুহম্মদ ইউনুস

অক্টোবর ১৪, ২০১৮ 1 By আরসিএন২৪বিডি.কম

 

রংপুর ক্রাইম নিউজ -মুন্সিগঞ্জ

পদ্মা সেতু নির্মাণে বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়ন বন্ধে ড. মুহম্মদ ইউনুসের ‘ষড়যন্ত্র’ ছিল বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, পদ্মাসেতুর অর্থায়ন বন্ধের পেছনে ছিলেন ড. ইউনুস। তার মধ্যে যদি দেশপ্রেম থাকতো তাহলে তিনি কী করে দেশের এত বড় ক্ষতি করেন?


রোববার (১৪ অক্টোবর) মুন্সিগঞ্জের মাওয়াপ্রান্তে পদ্মাসেতুর নাম ফলক উন্মোচনকালে এক সুধী সমাবেশে প্রধানমন্ত্রী এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে গিয়ে বিশ্ব ব্যাংকের সঙ্গে সৃষ্টি হওয়া জটিলতার কথা বক্তব্যে তুলে ধরেন।

 

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘গ্রামীণ ব্যাংকের আইনে আছে, ৬০ বছর পর্যন্ত ব্যাংকের এমডি থাকতে পারবেন। কিন্তু ড. ইউনুস কোনো অনুমোদন ছাড়াই ৭০ বছর পর্যন্ত অর্থাৎ ১০ বছর বেশি এমডির পদে থাকেন। সব সুযোগ সুবিধাও ভোগ করেন। এরপর বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে তাকে একটি চিঠি দেওয়া হয়। অর্থমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র বিষয়ক উপদেষ্টা গওহর রিজভী- এই দুইজন ড. ইউনুসের সঙ্গে দেখা করেন এবং তাকে বলা হয়, আপনি ব্যাংকের এমিরেটাস অ্যাডভাইজার হিসেবে থাকেন।’

কিন্তু তিনি আমাদের কথা শুনলেন না। তিনি দুটি মামলা করলেন। কোর্ট তাকে বললো, আপনার এমডি থাকা আইন অনুমোদন করে না। আপনি এ পদে থাকতে পারবেন না।’

শেখ হাসিনা বলেন, ওই সময় হিলারি যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি আমায় ফোন করলেন। টনি ব্লেয়ার যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী থাকাকালে তার স্ত্রী শেরি ব্লেয়ারও আমাকে ফোন করলেন। আমি তাদের বললাম- এটা তো আইনে পড়ে না। আমরা তাকে সম্মানজনক প্রস্তাব দিয়েছিলাম, কিন্তু তিনি রাখলেন না। এটা কোর্টের বিষয়, সরকারের পক্ষ থেকে সেখানে কিছু বলাও হয়নি। তিনিই মামলা করে হেরেছেন।

‘আমাকে বলা হয়, গ্রামীণ ব্যাংকের এমডি পদ থেকে ইউনুসকে সরালে পদ্মাসেতু হবে না। নোবেল পেয়ে গেছেন কিন্তু গ্রামীণ ব্যাংকের এমডির পদের লোভ ছাড়তে পারেন না তিনি। এরপর একটি পত্রিকার সম্পাদক ও ইউনুস আমেরিকায় যান এবং হিলারি ক্লিনটনকে অনুরোধ করেন। তখন বিশ্বব্যাংকের প্রধান তার শেষ সময়ে পদ্মাসেতু প্রকল্পের অর্থায়ন বন্ধের অর্ডার দিয়ে যান।’

তিনি বলেন, শান্তিতে নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ মুহাম্মদ ইউনূসকে নিয়ম অনুযায়ী গ্রামীণ ব্যাংকের এমডি পদ থেকে সরিয়ে দেওয়ার প্রতিক্রিয়ায় বিশ্ব ব্যাংকসহ পশ্চিমা বিশ্বের কিছু নেতা পদ্ম সেতু নির্মাণে বাঁধা হয়ে দাঁড়িয়েছিল।

এই পদ্মা সেতু নির্মাণে যারা বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছিল, যারা এই সেতুবন্ধ করার ষড়যন্ত্র করেছে সেতু বাস্তবায়নের মধ্যে দিয়ে তাদের যেন উপযুক্ত জবাব দিতে পারি।

এর আগে সকালে মাওয়ায় পৌঁছে তিনি সেতুর নামফলক উন্মোচনসহ প্রকল্প সংশ্লিষ্ট কয়েকটি কাজের উদ্বোধন করেন।

পরে প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর মাওয়া টোল প্লাজার পাশের গোল চত্বরে আয়োজিত সমাবেশে অংশ নেন।

তিনি বলেন, “জনগণের ওপর আমার ভরসা ছিল। সেই ভরসা নিয়েই সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু করেছি। অনেক বাধা বিপত্তি মোকাবেলা করতে হয়েছে।নিজস্ব অর্থায়নে করছি। কিন্তু এর পেছনে যে অপমান যে নির্যাতন আমাদেরকে ভোগ করতে হয়েছে, এর পেছনে দেশের কিছু লোক জড়িত। যারা গরীবকে টাকা দিয়ে সুদ খায় তারা এর চেয়ে বেশি কী করতে পারে?”

প্রধানমন্ত্রী সকালে হেলিকপ্টারে করে মাওয়ার দোগাছির পদ্মা সেতুর সার্ভিস এরিয়ার-১ এর মাঠে অবতরণ করেন। এরপর গাড়িতে যান সেতু এলাকায়।

প্রধানমন্ত্রী  বলেন, এই গর্বের সেতু নির্মিত হচ্ছে বিশ্বের সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ও উপকরণ দিয়ে। দ্বিতল পদ্মা সেতু নির্মিত হচ্ছে স্টিল ও কংক্রিট স্ট্রাকচারে। বহুমুখী এই সেতুর ওপরের ডেক দিয়ে যানবাহন এবং নিচের ডেক দিয়ে চলাচল করবে ট্রেন। এর নির্মাণকাজ শেষ হলে ঢাকার সাথে সড়ক ও রেলপথে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের ১৯টি জেলার সরাসরি যোগাযোগ স্থাপন সম্ভব হবে।

২০১৫ সালের ১২ ডিসেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই ৭ নম্বর খুঁটিতেই পাইল স্থাপনের কাজ শুরুর মধ্য দিয়ে মূল সেতুর কাজের উদ্বোধন করেছিলেন।

পদ্মা সেতুর ৪২টি খুঁটিতে ৪১টি স্প্যান বসবে। এর মধ্যে ১৪টি খুঁটি বসানোর কাজ শেষ হয়েছে। আর নদীতে ১৮০টি পাইল স্থাপন করা হয়েছে।

আরসিএন ২৪ বিডি

সারা বাংলার খবর