ঠাকুরগাঁওয়ে অজ্ঞাত রোগে ৫ জনের মৃত্যু — অসুস্থ আরো ৫ জন

ঠাকুরগাঁওয়ে অজ্ঞাত রোগে ৫ জনের মৃত্যু — অসুস্থ আরো ৫ জন

ফেব্রুয়ারি ২৫, ২০১৯ 0 By আরসিএন২৪বিডি.কম

ঠাকুরগাঁও: ঠাকুরগাঁও জেলার বালিয়াডাঙ্গী উপজেলায় অজ্ঞাত রোগে একই পরিবারের স্বামী-স্ত্রী, জামাই ও দুই পুত্রের মৃত্যু হওয়ায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে গোটা গ্রাম জুড়ে।

এই পরিবারের সদস্যরা ভাইরাসজনিত রোগে ১২ দিনের ব্যবধানে মারা যায় ।

ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালের সিভিল সার্জন (ভারপ্রাপ্ত) ডা. শাহজাহান নেওয়াজ জানান Encephalitis রোগে আক্রান্ত হয়ে এ পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

এই ভাইরাস প্রথমে ব্রেইনে আক্রমণ করে। পরে সারা শরীরে ছড়িয়ে পড়ে।

এলাকা সূত্রে জানা যায়, গত ১২ ফেব্রুয়ারি বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার ধনতলা ইউনিয়নে ভান্ডারদহ মরিচপাড়া গ্রামের আবু তাহের (৫৫) মৃত্যুবরণ করেন।

আবু তাহের বয়স্ক বলে বিষয়টি তেমন গুরুত্বের সাথে দেখেনি তার পরিবার। এরপর গত বুধবার (২০ ফেব্রুয়ারি) আবু তাহেরের জামাই হাবিবুর রহমান বাবলু (৩৫) একই ভাবে আক্রান্ত হয়।

বৃহস্পতিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) সকালে ৯ টার সময় রংপুর মেডিকেল কলেজ ও হাসপাপাতালে বাবলুর মৃত্যু হলে জামাইয়ের সেই মৃত্যুর সংবাদ শোনার কিছুক্ষণ পর আবু তাহেরের স্ত্রী হোসনেয়ারা বেগম (৪৫) একই রোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন।

রবিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) সকালে একই রোগে আক্রান্ত হয় আবু তাহেরের দুই ছেলে ইউসুফ আলী (২৭) ও মেহেদী হাসান (২৪)।

আর তাদের দুজনকে রংপুর মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে নেয়ার পথে ইউসুফ মারা যায় এবং মেহেদী রংপুর মেডিকেল কলেজ ও হাসাতালের ২য় তলার মেডিসিন বিভাগের ৩নং ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন থাকাবস্থায় রবিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে মৃত্যুবরণ করেন।

বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ফিরোজ জামান বলেন, এ রোগে আক্রান্ত ইউসুফ আলীর স্ত্রী কোহিনুর (২৮) তার শিশু সন্তান রিফাত (২) তার শ্বশুড়কে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে থেকে রবিবার গভীর রাতে রংপুর মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

সহিদুল ইসলাম নামে স্থানীয় এক ইউপি সদস্য ও বালিয়াডাঙ্গী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অ্যাম্বুলেন্স ড্রাইভার মোতালেব এ রোগে আক্রান্ত হয়েছে বলে জানা গেছে।

পরে সকলকে রংপুর মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

সিভিল সার্জন আরো বলেন, বালিয়াডাঙ্গী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডা. মোর্শেদ মাসুম বিল্লাহকে প্রধান করে ৩ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি, দ্রুত চিকিৎসা সেবা ও পরামর্শের জন্য ৬ সদস্য বিশিষ্ট একটি মেডিকেল টিম এবং কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে।

এ ঘটনার সঠিক কারণ নিরূপণ করতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল থেকে ৩ জন বিশেষজ্ঞ ও ৩ সহকারীসহ ৬ সদস্যের একটি টিম বালিয়াডাঙ্গী’র উদ্দেশে সোমবার সকালে রওয়ানা দিয়েছেন বলে জানান তিনি।

এই টিম রংপুর হাসপাতালে মৃত মেহেদীর লাশ থেকে নমুনা সংগ্রহ করবেন। সেখান থেকে নিহত ৫ জনের বাড়ি বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার ধনতলা ইউনিয়নের ভান্ডারদহ মরিচপাড়া গ্রামে যাবেন।

ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসক ড. কে এম কামরুজ্জামান সেলিম জানান, বিষয়টি প্রশাসন অতি গুরুত্বের সাথে দেখছে।

আমরা আশা করছি ঢামেক থেকে মেডিকেল টিমটি এলাকায় আসলেই রোগটি সনাক্তসহ এর প্রতিকার জানা সম্ভব হবে।

বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা নির্বাহী অফিসার, থানার কর্মকর্তাসহ সকলকে নিদের্শনা প্রদান করা হয়েছে। এ ধরণের কোনো রোগী আক্রান্ত হলেই তাদের দ্রুত রংপুর মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে প্রেরণ করার জন্য।

অন্যদিকে ওই এলাকার স্থানীয় বাসিন্দাদের মুখে মাস্ক পড়ে এলাকায় থাকার জন্য চিকিৎসকদের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে।

এদিকে একের পর এক মৃত্যু এবং অ্যাম্বুলেন্সের ড্রাইভারসহ আরও ৫জন অসুস্থ হয়ে পড়ায় ভাইরাস আতঙ্কে ওই গ্রামের লোকজন অন্যত্র চলে যাচ্ছে।

সেখানে সিভিল সার্জন, উপজেলা নিবার্হী অফিসার, স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ও থানার ওসি বর্তমান অবস্থান করছেন।

আরসিএন২৪বিডি/ সময়: ২১৩৪ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ২৫, ২০১৯