June 13, 2024
আচরণ বিধি লঙ্ঘন করায় রাঙ্গাকে কারণ দেখার নোটিশ

বহিস্কারের আদেশ প্রত্যাহার চান রাঙ্গা

Read Time:3 Minute, 23 Second

জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য পদ থেকে নিজের অব্যাহতির আদেশে অখুশি নন বলে জানিয়েছেন সংসদের বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ মসিউর রহমান রাঙ্গা।

তিনি বলেন, আমি আমার অব্যাহতির আদেশে অখুশি নই। তবে আমি আমার বহিষ্কার আদেশ প্রত্যাহার চাই। চেয়ারম্যানের সঙ্গে যুদ্ধ করে দলে থাকা যায় না।

আজ বৃহস্পতিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) সকালে রাজধানীর সেগুনবাগিচা ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন ।

এর আগে গতকাল বুধবার (১৪ সেপ্টেম্বর) মসিউর রহমান রাঙ্গাকে জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য পদ থেকে অব্যাহতি দেন দলের চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ (জিএম) কাদের।

দলের চেয়ারম্যান জিএম কাদের রংপুরে কীভাবে রাজনীতি করেন তা দেখে নেওয়ার হুমকি বিষয়ে জানতে চাইলে রাঙ্গা বলেন, গতকাল অব্যাহতির আদেশ পাওয়ার পর আমি একটু রাগান্বিত ছিলাম। এটা অস্বীকার করব না।

আমি চেয়ারম্যানকে যে চ্যালেঞ্জ দিয়েছিলাম সেটা তুলে নিয়েছি। রংপুরেও আর কোনো ঝামেলা হবে না। সেটা গতকাল রাতেই বলে দিয়েছি।

তিনি বলেন, আমি কোনো অন্যায় করিনি। এটা বলার জন্য আজ এই সংবাদ সম্মেলনে ডেকেছি। আমি আমার বহিষ্কার আদেশে অখুশি নই। আমি চাই, দলটা যেন সুন্দরভাবে চলে, না ভেঙে যায়। দলটাকে ছোট করা ঠিক হবে না। প্রয়োজনে আমি নিজেই দলে থাকব না।

দল থেকে অব্যাহতি দেওয়ার বিষয়ে রাঙ্গা বলেন, রওশন এরশাদকে সরিয়ে জিএম কাদেরকে সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা করার বিষয়ে যে চিঠি দেওয়া হয়েছে তার প্রক্রিয়া সঠিক ছিল না।

এটা আমি একটা টেলিভিশনকে বলেছিলাম, এজন্য আমাকে বহিষ্কার করা হয়েছে বলে মনে করছি চিঠি দেওয়ার প্রক্রিয়া সঠিক না থাকলে সেটা নিয়ে এতদিন পরে কেন কথা বলছেন, জানতে চাইলে বিরোধী দলীয় এ চিফ হুইপ বলেন, রওশন এরশাদকে সরিয়ে জিএম কাদেরকে বিরোধী দলীয় নেতা করার চিঠি দেওয়া পর তিনি আমাকে বলছেন, তুমি তো আমার সব সর্বনাশ করছ। তুমি তো সব চিঠিতে সই করেছ।

তখন আমি উনাকে বলেছি, এটার সঙ্গে আমি নেই। প্রক্রিয়া যে সঠিক ছিল না, এটা আমি কোনো গণমাধ্যমে বলে দেব। এরপর আমি এ নিয়ে কথা বলেছি।

আগামীতে আপনি রওশন এরশাদের সাথে থাকবেন কি না এ বিষয়ে জানতে চাইলে সাবেক এ মন্ত্রী বলেন, সেটা এখনও ঠিক করিনি।

অরসিএন ২৪বিডি / ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২২

  • সুন্দরগঞ্জে পশুর হাট নিয়ে পুলিশ-জনতা সংঘর্ষ

    গাইবান্ধা জেলার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার শান্তিরাম ইউনিয়নের মজুমদার বাজারে কুরবানির পশুর হাট বসানোকে কেন্দ্র করে পুলিশ-জনতার সংঘর্ষে ৩ রাউন্ড শটগানের গুলি বিনিময় ও পুলিশসহ মোট ১০ জন আহত হয়েছে।

    ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল বুধবার (১২ জুন) বিকালে মজুমদার বাজার সংলগ্ন পরিত্যক্ত জমিতে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে অতিরিক্ত দাঙ্গা পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। ঘটনাস্থান পরিদর্শন করেছেন গাইবান্ধার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ( এ-সার্কেল) ধ্রুব জ্যোতির্ময় গোপ, উপজেলা নিবার্হী অফিসার মোঃ তরিকুল ইসলাম, থানার ওসি মোঃ মাহবুব আলম প্রমুখ।

    থানা পুলিশ ও স্থানীয়দের নিকট থেকে জানা যায়, প্রতিদিনের মত হাট-বাজার চলে আসছিল। কুরবানি উপলক্ষে গতকাল বুধবার পশুর হাট বাসানো হয়। পশুর হাট অবৈধভাবে বসানো হয়েছে মর্মে বিভিন্ন মহলের অভিযোগের ভিত্তিত্বে পুলিশ ঘটনাস্থানে উপস্থিত হয়ে পশুর হাট বন্ধ করে দেয়ার চেষ্টা করে। এক পর্যায় জনতা ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে এবং পুলিশের সাথে সংঘর্ষ বাঁধে। পরে পুলিশ পরিস্থিত নিয়ন্ত্রণে ৩ রাউন্ড শটগানের গুলি বিনিময় করেন। এতে এসআই আবুল কালাম আজাদ, এএসআই মোঃ মাসুদ রানা, কনস্টেবল মনির হোসেন, সোলায়মান হোসেনসহ মোট ১০ জন আহত হয়েছে। আহতরা বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

    পশু কিনতে আসা গ্রাহক মোঃ সুজন মিয়া জানান, পুলিশ অন্যায়ভাবে হাটে প্রবেশ করে পশুর হাট প- করে দেয়। এতে করে কয়েটি গরু হারিয়ে গিয়েছে ও অনেকের টাকা পয়সা খোয়া গেছে।

    হাট ইাজারাদার মোঃ মাইদুল ইসলামের বলেন, পশুর হাট বসানোর ক্ষেত্রে কোন বিধি নিষেধ নেই, সে কারণে কুরবানির পশুরহাট বসানো হয়েছে। তারপরও কেন পশুর হাট বসানো যাবে না, সেই মর্মে হাইকোর্টের একটি লিগ্যাল নোটিশ উপজেলা নিবার্হী অফিসারকে দেয়া হয়েছে। এরপরও বেআইনিভাবে পশুর হাট বন্ধ করে পুলিশ।

    থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ মাহবুব আলম জানান, অনলাইন সেবা ৯৯৯ এ বিভিন্ন মহলের অভিযোগের ভিত্তিত্বে পুলিশ কুরবানির পশুর হাট না বসানোর জন্য অনুরোধ করে। কিন্তু জনতা পুলিশের সরকারি কাজে বাঁধা প্রদান করেন এবং ৪ জন পুলিশ সদস্যকে আহত করে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ৩ রাউন্ড শটগানের গুলি বিনিময় করেন।

    উপজেলা নিবার্হী অফিসার মোঃ তরিকুল ইসলাম জানান, কেন মজুমদার হাটের ইজারাদার কুরবানির পশুর হাট বসাতে পারবেন না, সে মর্মে হাইকোর্ট একটি লিগ্যাল নোটিশ দিয়েছে। বিষয়টি নিয়ে গাইবান্ধা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পিপির মতামতের জন্য পাঠিয়েছি। কিন্তু মতামত না পাওয়ার আগে অনাকাঙ্খিত ঘটনাটি ঘটে। বিষয়টি খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

  • রানীশংকৈলে গুল খেয়ে এক শিশুর মৃত্যু

    ঠাকুরগাঁও জেলার রানীশংকৈলে গুল খেয়ে ১৮ মাস বয়সী এক মেয়ে শিশুর মৃত্যুর হয়েছে।

    গতকাল (বুধবার) সন্ধ্যায় উপজেলার ধর্মগড় ইউনিয়নের চেংমারি গ্রামে এই মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটে।

    মারা যাওয়া শিশুটির নাম মোছাঃ সিদ্দিকা আক্তার। সে ওই গ্রামের দিনমজুর আবু বক্কর সিদ্দিকের কন্যা।

    এলাকাবাসী ও স্থানীয় ইউপি সদস্য আবুল কাশেম বলেন, বিকেলের দিকে শিশুটির বাবা ও মা দুইজনেই বসতঘরের চৌকির ওপর ১৮ মাস বয়সী সিদ্দিকাকে রেখে বাড়ির পাশের মাঠে ঘাস কাটতে যান। কাজ শেষে সন্ধ্যায় বাসায় ফিরে দেখতে পান বাড়ির উঠানের পাশে রাস্তায় শিশুটির হাতে গুলভর্তি থাকা প্লাস্টিকের কৌটাসহ শিশুটি ছটফট করছে। পরে শিশুটিকে পার্শ্ববর্তী বাজারে পল্লী চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

    এই বিষয়ে রানীশংকৈল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জয়ন্ত কুমার সাহা জানান, গুল খেয়ে শিশুটির মৃত্যু হয়েছে। নিহতের পরিবারের কোনো অভিযোগ না থাকায় এডিএমের অনুমতি সাপেক্ষে মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

  • সুন্দরগঞ্জে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর পেয়েছে ৫৫ টি গৃহহীন পরিবার

    গাইবান্ধা জেলার সুন্দরগঞ্জে আশ্রয়ণ প্রকল্প-২-এর আওতায় ভূমিহীন ও গৃহহীন ৫৫ টি পরিবারের মধ্যে জমিসহ ঘরের কাগজপত্র হস্তান্তর করা হয়েছে।

    গতকাল মঙ্গলবার সুন্দরগঞ্জ উপজেলা প্রশাসনের সভাকক্ষে সুবিধাভোগীদের মধ্যে এই কাগজপত্র হস্তান্তর করা হয়।

    এর আগে মুজিববর্ষ উপলক্ষে সারা দেশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৮,৫৬৬টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমিসহ ঘর প্রদানের এই কর্মসূচির উদ্বোধন করেন।

    উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোঃ তরিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে হস্তান্তর অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন জেলা প্রশাসক কাজী নাহিদ রসুল, কাপাসিয়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মোঃ মনজু মিয়া প্রমুখ। এই সময় জেলা–উপজেলা প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ছাড়াও গৃহহীন পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

  • নীলফামারীতে যুবকের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

    নীলফামারী জেলার কিশোরগঞ্জে মোঃ মিলন মিয়া (২৪) নামের এক যুবকের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল মঙ্গলবার রাতে নিজ বাড়ি হতে তাঁর মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

    মৃত যুবক বড়ভিটা ইউনিয়নের দলবাড়ী গ্রামের মৃত জামিয়ার রহমানের ছেলে।

    নিহতদের স্বজন ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, গতকাল ওই যুবক বাড়িতে একা ছিল। তাঁর মা আত্মীয়ের বাড়িতে বেড়াতে গিয়েছিল। রাতে বাড়ি ফিরে দেখেন তাঁর হাঁটু মাটিতে লেগে ছিল ও গলায় দড়ি লাগানো অবস্থায় ঘরের আড়ার সাথে ঝুলছে। পরে স্বজনেরা পুলিশে খবর দেয়। পুলিশ এসে মরদেহ উদ্ধার করে।

    এই বিষয়ে কিশোরগঞ্জ থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) পলাশ চন্দ্র মণ্ডল মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, এই বিষয়ে একটি অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করা হয়েছে।

  • চোরাচালানের অভিযোগে ইউপি চেয়ারম্যান গ্রেফতার

    চোরাচালানের অভিযোগে বিশেষ ক্ষমতা আইনের মামলায় কুড়িগ্রাম জেলার চর রাজিবপুর উপজেলার রাজিবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিরন মোঃ ইলিয়াসকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। আজ বুধবার দুপুরে তাঁকে গ্রেফতার করা হয়।

    রাজিবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ আশিকুর রহমান এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

    ওসি জানায়, চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ২০১২ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনে করা মামলায় আদালত কর্তৃক গ্রেফতারি পরোয়ানা ছিল। পরোয়ানা মূলে তাঁকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

    অভিযোগ প্রসঙ্গে ওসি বলেন, ‘বর্ডারহাট এলাকায় পণ্য চোরাচালানের অভিযোগে তাঁর বিরুদ্ধে মামলা ছিল।’

    জানা যায়, মিরন মোঃ ইলিয়াস উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য সচিব। তিনি বর্তমান মেয়াদে সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়।

Happy
Happy
0 %
Sad
Sad
0 %
Excited
Excited
0 %
Sleepy
Sleepy
0 %
Angry
Angry
0 %
Surprise
Surprise
0 %
ঠান্ডাজনিত রোগে ৮৮ জনের মৃত্যু Previous post সারাদেশে করোনায় ৪৩৮ জন শনাক্ত
জমি নিয়ে বিরোধের জেরে সংঘর্ষে ১ জন নিহত Next post রংপুর মেডিকেলে মালামাল পাচারের সময় ওয়ার্ড মাষ্টার আটক