May 18, 2024
বিভাগের বড় ভাইয়ের বাড়ি বেড়াতে গিয়ে বেরোবি শিক্ষার্থীর মৃত্যু

বিভাগের বড় ভাইয়ের বাড়ি বেড়াতে গিয়ে বেরোবি শিক্ষার্থীর মৃত্যু

Read Time:4 Minute, 31 Second

আগামী ২৬ এপ্রিল বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিসের (বিসিএস) প্রিলিমিনারি পরীক্ষার প্রস্তুতিতে যাতে ব্যাঘাত না ঘটে সে কারণে ক্যাম্পাস ছেড়ে ঈদের ছুটিতে বাড়ি যায় নি বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) ইতিহাস ও প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের শিক্ষার্থী মোহাম্মদ আফ্রিদি।

তবে বিভাগের বড় ভাইয়ের বাড়ি রংপুরের কাছে হওয়ায় তাঁর দাওয়াতে স্বল্প সময়ের জন্য গিয়েছিল। রাতে খেয়ে ঘুমিয়ে পড়লেন ঠিকই, কিন্তু আর জেগে উঠলো না।

প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, হার্ট-অ্যাটাকে মৃত্যু হয়েছে আফ্রিদির।

আজ সোমবার রংপুর জেলার পীরগঞ্জে বিভাগের বড় ভাইয়ের বাড়িতে রাতে খেয়ে ঘুম থেকে না জাগায় স্থানীয় চিকিৎসক ডাকা হলে তিনি এসে আফ্রিদিকে মৃত ঘোষণা করেন।

ওই শিক্ষার্থীর নাম ইমাম আফ্রিদি আগুন। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস ও প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের ১১তম আবর্তনের শিক্ষার্থী। তাঁর বাড়ি যশোরের বাঘাপাড়াতে।

সহপাঠী ও বিভাগের অন্যান্য শিক্ষার্থী সূত্রে জানা গেছে, গতকাল রবিবার বিভাগের ১০ম আবর্তনের শিক্ষার্থী সৌখিনের বাড়ি পীরগঞ্জের রাজারামপুরে দাওয়াতে গিয়েছিল। সেখানে খাওয়া-দাওয়া শেষে সেখানকার জায়গা ঘুরে রাতে তাদের বাড়িতে অবস্থান করে। সৌখিনসহ আজ তাঁর ক্যাম্পাসে ফেরার কথা ছিল।

এ বিষয়ে বিভাগের বড় ভাই সৌখিন বলেন, ‘আফ্রিদির সাথে আমার ভালো সম্পর্ক। সে ঈদে বাড়িতে না যাওয়ায় তাকে আমাদের বাড়িতে ঈদ করতে বলি। কিন্তু সে বিসিএস পরীক্ষার জন্য ভালো করে প্রস্তুতি নেবে বলে জানায়। পরে আমি যেদিন ক্যাম্পাসে ফিরব এর আগের দিন তাঁকে (আফ্রিদি) জানালে সে আসবে বলে আমাকে জানায়। যাতে পরদিন আমরা এক সাথে ক্যাম্পাসে ফিরতে পারি।’

তিনি আরও বলেন, ‘পরে গতকাল (রবিবার) বিকেল ৫টার দিকে আফ্রিদি আমাদের বাড়িতে আসে। খাওয়া-দাওয়া করে একটু আশপাশের জায়গায় ঘোরাঘুরি করি। রাতে খাওয়া-দাওয়া শেষ করে আমরা সামনের বিসিএস পরীক্ষার প্রস্তুতি নিয়ে গল্প করে প্রায় রাত ১টার দিকে ঘুমিয়ে পড়ি। সকালে খাওয়ার জন্য তাঁকে ডাকতে গেলে, তার কোন সাড়াশব্দ না পেয়ে বাড়ির লোকজনকে ডাকি। পরে বাড়ির লোকজন পাড়ার এক ডাক্তারকে ডেকে আনে পরে ডাক্তার ওকে দেখার জানায় সে নাকি মারা গেছে।’

এই ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর মোঃ শরিফুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা বিষয়টি অবগত হয়েছি। আফ্রিদি গতকাল ওর বিভাগের বড় ভাইয়ের বাড়িতে যায়। ওখানে সারাদিন খাওয়া-দাওয়া, ঘোরাফেরা শেষ করে রাতে ঘুমায়। তবে সকালে তাঁকে আর ঘুম থেকে তোলা যায় নি।’

পীরগঞ্জ থানা-পুলিশেরসাথে আফ্রিদির পরিবারের যোগাযোগ হয়েছে। পরিবারের সদস্যরা মরদেহে নিতে ইতিমধ্যে রওনা হয়েছেন বলেও জানিয়েছেন তিনি।

এ বিষয়ে পীরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ‘প্রাথমিকভাবে ঘটনাটিকে আমাদের কাছে স্বাভাবিক মৃত্যু বলেই মনে হয়েছে। আমরা এখনও কোন অভিযোগ পাইনি। পরিবারের কাছে মরদেহ হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলছে।’

Happy
Happy
0 %
Sad
Sad
0 %
Excited
Excited
0 %
Sleepy
Sleepy
0 %
Angry
Angry
0 %
Surprise
Surprise
0 %
নীলফামারীতে বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী নারীকে গণধর্ষণ, ৬ জন গ্রেপ্তার Previous post নীলফামারীতে বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী নারীকে গণধর্ষণ, ৬ জন গ্রেপ্তার
পাটগ্রাম সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে এক বাংলাদেশি যুবকের মৃত্যু Next post সীমান্ত থেকে বাংলাদেশি এক যুবককে ধরে নিয়ে গেছে বিএসএফ